নবজাতক

এই শীতে নবজাতকের জন্য চাই আরামদায়ক পোশাক

নবজাতকের যত্ন নেয়া প্রতিটি মায়ের জন্যই অবশ্য করণীয়। আবার যদি হয় শীতকাল তবে তো নো কম্প্রোমাইজ। কারণ, এসময় শীতজনিত রোগের প্রাদুর্ভাব হয়ে থাকে। যেমন- সর্দি-কাশি, জ্বর, ইনফ্লুয়েঞ্জা, শ্বাসতন্ত্রের সংক্রমণ, শ্বাসতন্ত্রের প্রদাহজনিত অ্যালার্জিক রোগ, ডায়রিয়া ও নিউমোনিয়া ইত্যাদি। চিকিৎসকগণ মায়েদেরকে শীতের সময় বিশেষভাবে সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। ঠাণ্ডা প্রতিরোধী শীতের বিশেষ পোশাক পরিধানের কথা বলে থাকেন। শীতের পোশাকের রয়েছে নানান ধরন। তাই জেনে নিন আপনার শিশুর জন্য কোন পোশাক কিনবেন।

নবজাতকের জন্য কেমন পোশাক

আমরা জানি যে সদ্যজাত শিশুর ত্বক অনেক সফট এবং স্পর্শকাতর। তাই তাদের পোশাক-আশাক কেনার ক্ষেত্রে এ বিষয়টি মনে রাখতে হবে যে, পোশাক যেন শিশুর অস্বস্তির কারণ না হয়। শিশু বিশেষজ্ঞ এবং ত্বক বিশেষজ্ঞ সুপারিশ করেন যে, সুতির কাপড়ের পোশাকই শিশুদের জন্য উত্তম। সিনথেটিকের পোশাক কোনভাবেই নবজাতকের জন্য পারফেক্ট নয়।

নবজাতকের জন্য কিছু বিশেষ পোশাক

স্যাউডেল ব্লাঙ্কেট

ছবি: স্যাউডেল ব্লাঙ্কেট

Swaddle blanket শিশুদের জন্য খুবই জনপ্রিয় একটি শীতবস্ত্র। এর মাধ্যমে শিশুকে সুন্দরভাবে প্যাঁচিয়ে রাখা যায়। ফলে শিশু নিরাপদ থাকে। বাচ্চাদের ঘুমানোর জন্য এই কম্বল খুবই জনপ্রিয়। যেসব বাচ্চারা অতিরিক্ত লাফালাফি করে তাদের শান্ত করতে এ কম্বল খুবই কার্যকরি। তবে এই কম্বল ভালোভাবে প্যাঁচানো জানতে হবে। অন্যথায় কিছু আশঙ্কার কথা বিশেষজ্ঞগণ বলে থাকেন। যেমন- খুব টাইট করে প্যাঁচিয়ে রাখলে Hip Dysplasia সমস্যা দেখা দিতে পারে। সেক্ষেত্রে মায়েদের সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে।

বেবি রম্পার

ছবি: বেবি রম্পার

রম্পার একটি ট্রেন্ডি বেবি ড্রেস। এটি যদিও বাংলাদেশে নতুন। তবে দিন দিন এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। বেবি রম্পার সাধারণত সুতি কাপড়ের হয়ে থাকে। এটি খুবই সফট এবং আরামদায়ক। রম্পারের অনেক ফিচার রয়েছে। যেমন- জিপার ক্লোজার, সাং ফিটিংস, স্ন্যাপ ক্লোজার, ফুটেড ক্লোজার ইত্যাদি। তবে রম্পার কেনার সময় কাপড়, মান, স্টাইল, সাইজ, আবহাওয়া, কালার এবং দাম এই বিষয়গুলোর দিকে মনযোগ দিবেন।

বেবি বিবস

ছবি: বেবি বিবস

বেবি বিবস শিশুদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ বস্ত্রখণ্ড। এটি পুরোপুরি পরিধেয় পোশাক না হলেও এর ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বাচ্চাদের মুখ দিয়ে প্রায় সময়ই লালা ঝরে। ফলে পরিধেয় পোশাক, বুক এবং গলা ভিজে যায়। এমনকি বুকে অতিরিক্ত ঠাণ্ডা লাগার সম্ভাবনাও থাকে।

প্রয়োজন অনুযায়ী বিবসের কাপড় ভিন্ন হয়ে থাকে। যেমন- দুধ, পানি বা যেকোন তরল খাবার অথবা মুখ দিয়ে লালা ঝরলে সুতি কাপড়ের বিব্স ব্যবহার করা ভালো। কারণ সুতি কাপড় খুব তাড়াতাড়ি এবং খুব বেশি পরিমাণ পানি শোষণ করতে পারে। আর যদি তরল নয় এমন খাবার খাওয়ান তবে সিলিকন অথবা সিনথেটিক উপাদানে তৈরি বিবস বা বক্ষবস্ত্র। কারণ, এ ধরনের বিবস খুব তাড়াতাড়ি ধুয়ে পুরিষ্কার করা যায়। নানা ধরনের কালারফুল বিবস পেতে অনলাইনে ভিজিট করতে পারেন Jadroo.com ওয়েবসাইট।

বেবি ডায়াপার

ছবি: বেবি ডায়াপার

ডায়াপার বা ন্যাপি বর্তমান সময়ের বহুল ব্যবহৃত একটি বেবি ক্লথিং। পানি শোষণ করে এমন কাপড় বা কাগজ অথবা সিনথেটিক ডিসপোজাল উপাদান দিয়ে এই ডায়াপার বা ন্যাপিগুলো তৈরি করা হয়। তাই আপনার আদরের সোনামনি যখন যেখানে মূত্র ত্যাগ করুক না কেন আপনি থাকবেন নিশ্চিন্ত।

বিভিন্ন ধরনের ডায়াপার যাদরো অনলাইনে পাওয়া যাবে। Jadroo Online shop চীন, দুবাই, তাইওয়ান থেকে নানা মান এবং আকৃতির ডায়াপার আমদানী করে থাকে। যেমন- পকেট ডায়াপার, রিইউসএবল ডায়াপার, ডিসপোজএবল ডায়াপার, কাপড়ের ডায়াপার, চোষ কাগজ ডায়াপার, ওয়াটারপ্রুফ ডায়াপর প্যান্ট স্টাইল ডায়াপার।

ডায়াপার কেনার সময় কিছু বিষয় আপনাকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। যেমন- বাচ্চার বয়স, ওজন এবং সাইজ। কারণ, ওজন-বয়স এবং সাইজভেদে ডায়াপারের সাইজ ভিন্ন হয়ে থাকে।

ডায়াপারের কিছু অসুবিধা রয়েছে। যেমন- বেশি সময় পর্যন্ত ডায়াপার পরিয়ে রাখলে ত্বকে র‌্যাশ হবার সম্ভাবনা থাকে। এমনকি ঠাণ্ডা লাগার মতো সমস্যাও হতে পারে।

কাঁথা

ছবি: কাঁথা

দীর্ঘদিন যাবৎ নবযাতকের যত্নে নকশি কাঁথা ব্যবহা হয়ে আসছে। আজ অবদি তা ট্রেন্ড হিসেবেই রয়েছে। গ্রামে এর প্রচলন খুব বেশি। দাদা-দাদী তাদের আবেগ মিশিয়ে ছোট ছোট কাঁথা তৈরি করে থাকে। এখন যেকোন যায়গায় এ নকশী কাঁথা পাওয়া খুবই কঠিন। যাদরো অনলাইন শপে নানা ধরনের কাঁথা পাওয়া যাবে।

নিমা নবযাতকের জন্য একটি আরামদায়ক পোশাক। নিমা সাধারণত সুতি কাপড়ের হয়ে থাকে। এতে ফুল, ফল, প্রাণী, কার্টুনসহ নানা ধরনের প্রিন্ট থাকে। নিমা বাচ্চাদের জন্য হাতা বিহীন পোশাক।

বাথ তাওয়াল

ছবি: বাথ তাওয়াল

বাথ তাওয়াল বাচ্চাদের জন্য একটি প্রয়োজনীয় কাপড়। যেকোন তোয়ালে দিয়ে বাচ্চাদের শরীর মোছানো উচিত নয়। তাদের ত্বক যেহেতু খুবই নরম এবংস্পর্শকাতর তাই তোয়ালে হতে হবে নরম এবং কোমল। অবশ্যই খুব তাড়াতাড়ি এবং বেশি পানি শোষণ ক্ষমতা থাকতে হবে।

নবযাতকের পোশাক বিষয়ে আলোচনার এখানেই ইতি টানতে চাই। তবে শেষ করার আগে বলবো বাচ্চাদের পোশাক কিনার সময় প্রতিটি অভিভাবককে যথেষ্ট সচেতন হতে হবে। উল্লিখিত পোশাকগুলো একটি সদ্যজাত শিশুর জন্য হতে পারে আদর্শ পোশাক। তবে এ পোশাকগুলো ঢাকা শহরের বিভিন্ন মার্কেটের পোশাকের দোকানে পাওয়া সম্ভাবনা খুবই কম। অনলাইনে ঘরে বসে অর্ডার দিয়ে কিনতে পারেন। সঠিক দামে ভালো মানের বেবি ড্রেস কিনতে ভিজিট করতে পারেন jadroo.com । নবযাতকের পোশাক বিষয়ে আপনার কোন মতামত থাকলে কমেন্ট বক্সে কমেন্ট করুন। আপনার মতামতকে গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হবে। মা ও শিশুর নানা বিষয়ে জানতে পড়ুন Jadroo Blog.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

15 − 12 =